বিদেশ

বিপজ্জনক ভাবে জেগে উঠলো ইন্দোনেশিয়ার আগ্নেয়গিরি।।


চৈতালী নন্দী:-চিন্তন নিউজ:-১১আগস্ট: দানবিক গর্জনে হঠাৎই জেগে উঠেছে ইন্দোনেশিয়ার আগ্নেয়গিরি মাউন্ট সিনাবাং। এই অগ্নুৎপাতের তীব্রতা এতটাই বেশী ছিল যে ধোঁয়া ও আগুন উঠে যায় ৫ হাজার মিটার উচ্চতায়। এলাকাটি ঢেকে যায় পুরু ছাই ও কালো ধোঁয়ায়। শুরু হয়ে যায় ছাইয়ের বৃষ্টি। দৈত‍্যাকার ধোঁয়ার কুন্ডলীতে ছেয়ে যায় আকাশ।

ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপে অবস্থিত আগ্নেয়গিরিটি ২০১৬ থেকে আপাত শান্তই ছিল। শুধু মাঝেমধ‍্যে শোনা যাচ্ছিল গর্জন। প্রায় ৪০০ বছর ঘুমিয়ে থাকার পর গত ২০১০ সালে প্রথমবার গর্জন শোনা যায়। তারপর ২০১৩-২০১৪ সালে বিষ্ফোরণে ১৬ জনের মৃত্যু হয়, ২০১৬ সালে মৃত্যু হয় আরও ৭ জনের। ‘রিং অব ফায়ার’এ অবস্থানের কারণে ইন্দোনেশিয়াতে রয়েছে ১৩০টির বেশী আগ্নেয়গিরি। ফলে প্রশান্ত মহাসাগরের চারিদিকে টেকটোনিক প্লেটের সীমানায় ঘন ঘন ভূমিকম্পের প্রবনতা দেখা দেয়। ২০২০ সালে আগ্নেয়গিরিটি জীবন্ত হবার পরই ইন্দোনেশিয়ার সরকারের পক্ষ থেকে জারি করা হয়েছিল সতর্কতা। বিষাক্ত ধোঁয়ার কারণে বাড়ির বাইরে বেরোনোর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। আগ্নেয়গিরি থেকে ৫ কিমি দূরে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। গতবছর এখান থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে ৩০ হাজার বাসিন্দাকে।এই অগ্নুৎপাত শুরু হবার পরেই আশেপাশের এলাকার মানুষজনের মধ‍্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়। ভূতত্ববিদরা জানিয়েছেন যেকোনো সময় লাভা উদগীরণ শুরু হতে পারে, ছড়িয়ে পড়তে পারে লাভা স্রোত।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।