দেশ

সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণে সবকিছু পরীক্ষা দিতে গেহলট শিবির প্রস্তুত।


কাকলি চ্যাটার্জি: চিন্তন নিউজ: ২৬শে জুলাই:- বিধানসভায় নিজের সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণে প্রয়োজন হলে রাষ্ট্রপতি ভবন এবং প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনের সামনে ধর্ণায় বসতেও পিছপা নন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট। এর আগে গত শুক্রবার রাজ্যপাল কলরাজ মিশ্রর বাসভবনের লনে গেহলট তাঁর অনুগামীদের নিয়ে ধর্ণায় বসেন এবং ১০২ জন বিধায়কের সাক্ষরিত তালিকা রাজ্যপালের হাতে তুলে দিয়ে সোমবার বিধানসভা অধিবেশন আহ্বান করার দাবি জানান।

গতকাল গেহলট তাঁর অনুগামীদের বলেন তিনি দিল্লিতে রাষ্ট্রপতি ভবনে যেতে প্রস্তুত, প্রয়োজন হলে প্রধানমন্ত্রীর বাড়ি গিয়ে দরবার করতে চান বিজেপির ঘৃণ্য ষড়যন্ত্র পরাস্ত করতে। কোনোভাবেই বিজেপির ষড়যন্ত্র সফল হতে দেবেন না বলে তিনি জানান। গতকাল বিকেলে কংগ্ৰেস পরিষদীয় দলের বৈঠকে তিনি তাঁর মতামত ব্যক্ত করেন।

গেহলট বিধানসভা অধিবেশন ডাকার ব্যাপারে গভর্নরের সঙ্গে আলোচনায় গভর্নর বলেন হাইকোর্ট স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে বলেছে এবং “উপর থেকে কিছুটা চাপ ছিল।” এদিকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন তিনি সোমবার অধিবেশন ডেকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করতে চান। রাজভবনের লনে বসে বিধায়করা ‘ইনকিলাব জিন্দাবাদ’, ‘অশোক গেহলট জিন্দাবাদ ধ্বনি তোলেন। প্রায় পাঁচ ঘন্টা তাঁরা বিক্ষোভ চালিয়েছিলেন। সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণে সবকিছু পরীক্ষা দিতে গেহলট শিবির প্রস্তুত।

আশ্চর্যের বিষয় এটাই যে শাসকদল আস্থা ভোট চাইছে কিন্তু বিরোধীরা বাধা দিচ্ছে। রাজস্থান হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টের রায় সাময়িক স্বস্তি দিয়েছে শচীন পাইলট শিবিরকে। অধ্যক্ষ সি পি যোশী বিদ্রোহী ১৮ জন বিধায়কের বিধায়কপদ খারিজ করতে পারবেন না এবং স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে হবে। এখনো দুবছর বাকী চলতি মেয়াদ উত্তীর্ণ হতে। সুতরাং এই দীর্ঘ সময়ের পথচলায় রাজ্যে যে অচলাবস্থা, অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়েছে তার অবসান ঘটাতে শিগগিরই অধিবেশন আহ্বান করে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ অত্যন্ত জরুরী বলে দাবি করেন গেহলট শিবির। পূর্বের একটি বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বিধায়কদের বলেন যে পুরো দেশ তাঁদের ওপর নজর রাখছে সুতরাং তাঁরা নিজেদের অবস্থান পাথরের মত দৃঢ় করুন।

শনিবার সন্ধ্যায় প্রকাশিত সুপ্রিম কোর্টের মামলার রায় অনুসারে সোমবার বেলা এগারোটায় শচীন পাইলট সহ উনিশজনের বিরুদ্ধে স্থিতাবস্থা বজায় রাখার রাজস্থান হাইকোর্টের নির্দেশের বিরুদ্ধে স্পিকার যোশীর আপীলের শুনানি হবে। সুপ্রিম কোর্টের তিনজন বিচারপতি উপস্থিত থাকবেন। যোশী ঐ বিদ্রোহী ১৯ জন বিধায়কের বিধায়কপদ খারিজ করার নোটিশ ধরাতে চাইলে রাজ্য আদালত তা বাতিল করে স্থিতিশীল অবস্থা বজায় রাখতে বলে। পাইলট এই মামলায় সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেন। স্পিকার যোশী সুপ্রিম কোর্টে অভিযোগ করেন যে রাজ্য হাইকোর্টের কোনো এক্তিয়ার নেই যে তাঁকে বিদ্রোহী বিধায়কদের বিধায়কপদ খারিজের কার্যক্রম স্থগিত রাখতে বলার।তিনি হাইকোর্টের এই আদেশকে “অবৈধ, বিকৃত এবং স্পিকারের ক্ষমতাকে অবজ্ঞা করা হয়েছে বলে মনে করেন।”


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।