দেশ রাজ্য

পেটের দায়ে পরিযায়ী শ্রমিকদের ভিনরাজ্যে কাজে ফেরা নিয়ে কেন্দ্র রাজ্য তরজা


সায়ঙ্ক মন্ডল চিন্তন নিউজ ৫ই সেপ্টেম্বর,২০২০:- ফিরে যাচ্ছেন হুগলির ডানকুনি এলাকার পরিযায়ী শ্রমিকরা। করোনা অতিমারিতে সারা দেশ স্তব্ধ হয়ে গেছিল। সে সময় বাংলা এবং অন্যান্য রাজ্য থেকে যারা গেছিলেন কাজ করতে তারা বাংলায় ফিরে এসেছিলেন নিজ নিজ রাজ্যে । কিন্তু ফিরে এসে এতদিন ধরে ঘরে বসে সংসার চালানো অতি কষ্টকর ছিল তাদের পক্ষে । এই সময় তাদের পাশে বাংলার শাসক দল তৃণমূল ও কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপিকে পাওয়া যায় নি । এই সময় এই শ্রমিকদের পাশে দাঁড়িয়েছিল সিপিআই এম ও বিভিন্ন গনসংগঠনগুলি। এবার কেন্দ্র সরকার আনলক ৪ শুরু করতেই পেটের টানে আবার ভিন রাজ্যে তথা নিজের কর্মস্থলে ফিরে যাচ্ছেন । এই নিয়ে শুরু রাজ্য শাসকদল তৃণমূল ও কেন্দ্র শাসকদল বিজেপি মধ্যে তরজা । ব্যাঙ্গালুরু ও বিভিন্ন রাজ্যে গহনা কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন অনেক যুবক । এই লকডাউনের ফলে তারা কাজ হারিয়ে চলে এসেছিলেন বাংলাতে। কিন্তু কোনরকম কোন কাজ পাওয়া যায়নি । অর্থাৎ তারা যে কাজ জানেন সেই কাজের ব্যবস্থা এখানে নেই । একশো দিনের কাজ করে সংসার চালাতে পারছেন না তারা । এর ফলে নিজের পুরনো কর্মস্থলে ফিরে যাচ্ছেন ।

এই পরিযায়ী শ্রমিকদের অভিযোগ তাদের খোঁজ পর্যন্ত নিতে আসেনি তৃণমূল বা বিজেপি । তাদের পাশে তারা লাল ঝান্ডাকে পেয়েছেন । এরই মধ্যে শতাধিক পরিযায়ী শ্রমিক বাস ভাড়া করে নিজের পুরনো কর্মস্থলে ফিরে গেছেন । প্রসঙ্গত বলে রাখা ভালো এই সময় হুগলীর বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় বলেন ” রাজ্য সরকারের কাছে পরিযায়ী শ্রমিকদের তালিকা চাওয়া হয়েছিল কিন্তু তারা দেননি এও বলেন যে, কেন্দ্র থেকে শ্রমিকদের বরাদ্দ যে অর্থ রাজ্য সরকারের কাছে এসেছিল তা দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেন। তাই পরিযায়ী শ্রমিকদের ভিন রাজ্যে যেতে হচ্ছে।”

এরই প্রতিউত্তরে রাজ্য শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের মন্তব্য কেন্দ্র সরকারের রিপোর্ট অনুযায়ী পশ্চিমবঙ্গে কর্মসংস্থানের সংখ্যা সব থেকে বেশি । তার মানে কি রাজ্যে কাজ নেই ? জেলার পূর্ত কর্মাধক্ষ্য বলেন যে ” আসলে যারা গেছেন তারা ওখানে পনেরো -কুড়ি বছর ধরে আছেন সেখানে তাদের ব্যবসা আছে দোকান পত্র আছে বলে গেছেন ” ।

তৃণমূল ও বিজেপি’র এই তরজায় পেট ভরবে না শ্রমিকদের। এই জন্য তাদের বক্তব্য সিপিআইএম যদি না থাকতো, তাহলে না খেয়ে থাকতে হতো । তারা বারবার কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন সিপিআইএম কর্মীদের এই লকডাউনের তাদের পাশে থাকার জন্য।

এ প্রসঙ্গে সিপিআইএম নেতৃত্ব বলেন এটা তাঁদের কাজ সারা বছর মানুষের জন্য পাশে থাকা তাঁদের কর্তব্য। তার জন্য ভোট কতটা এলো কতটা গেল সেটা বড়ো কথা নয়।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।