রাজ্য শিক্ষা ও স্বাস্থ্য

স্টুডেন্টস হেলথ হোম সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল করোনা মহামারীতে বিধ্বস্ত মানুষকে


তুলসী কুমার সিনহা:চিন্তন নিউজ:২৯শে মার্চ:–করোনা মহামারীর সময়ে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় ডাক্তার, নার্সিং স্টাফ ও স্বাস্থ্য কর্মীকে মেস বা ভাড়া বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হচ্ছে তখন স্টুডেন্টস হেলথ হোম সেই সমস্ত ডাক্তার, নার্সিং স্টাফ ও স্বাস্থ্য কর্মীকে বিনা পয়সায় থাকার ব্যবস্থা করছে।

স্টুডেন্ট হেলথ হোম এর প্রেসিডেন্ট ডা: পবিত্র গোস্বামী সোস্যাল মিডিয়ায় এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন যে পশ্চিম বঙ্গের যে কোনো জেলায় কোনো চিকিৎসক,নার্স বা স্বাস্থ্য কর্মীর থাকার সমস্যা হলে তারা স্টুডেন্ট হেলথ হোম এর বাড়িতে থাকতে পারবেন, তিনি এই বিজ্ঞপ্তির সাথে প্রতিটি জেলার স্টুডেন্ট হেলথ হোমের দায়িত্বশীল কর্মীর মোবাইল নং উল্লেখ করেছেন।

ইতিমধ্যে গঙ্গারামপুর ও মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ কিছু স্বাস্থ্য কর্মীকে রাখার জন্য জানালে স্টুডেন্ট হেলথ হোম সেই ব্যাপারে সম্মতি দিয়েছে।এন আর এস হাসপাতালের দু’জন নার্সিং স্টাফ ও ইন্টার্নের থাকার ব্যবস্থা হয়েছে স্টুডেন্ট হেলথ হোম এর কেন্দ্রীয় বাড়িতে। বহরমপুরে, মুর্শিদাবাদ জেলার বিভিন্ন জায়গায় স্টুডেন্টস হেলথ হোমের সদস্য ছাত্রছাত্রীরা সচেতনতা মূলক লিফলেট বিলি করে।এলাকার মানুষের মধ্যে মাস্ক বিলি করে। সর্বদা পাশে থাকার আশ্বাস দিয়ে আসে।

এখানে উল্লেখ্য যে স্টুডেন্ট হেলথ হোম ১৯৫২ সালে ছাত্র-ছাত্রীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা পরিসেবা দেবার জন্য স্থাপিত হয়। পরবর্তীতে ‘পশ্চিমবঙ্গ সোসাইটি রেজিস্ট্রেশন এ্যাক্ট ১৯৬১’অনুযায়ী নথিভুক্ত হয়। স্টুডেন্ট হেলথ হোম ধারাবাহিক ভাবে ছাত্র সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা পালন করে চলেছে।

বিভিন্ন সময়ে স্টুডেন্ট হেলথ হোম পঃবঃসরকারের আর্থিক অনুদান ও সাহায্য পেয়ে এলেও বর্তমান সরকার এই ব্যাপারে খানিকটা উদাসীন। বিগত বামসরকারের আমলে স্টুডেন্টস হেলথ হোম পশ্চিমবঙ্গে যথেষ্ট প্রসার লাভ করেছিল।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।