রাজ্য

বাঘের আক্রমণে মৃত্যু,মৃততের পরিবারের পাশে মানববন্ধু সিপিআই(এম) নেতা কর্মীরা


সুপর্ণা রায়: চিন্তন নিউজ:২৩শে জুন:- বন দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিকরা কিছুতেই মনে করতে পারছেন না এমন মর্মান্তিক ঘটনার কথা।। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে সুন্দরবন অঞ্চলে দীর্ঘ সময় লকডাউন পরিস্থিতির কবলে ছিল।। সুন্দর বনের অতিদরিদ্র গ্রামবাসীরদের জীবন জীবিকা নির্বাহ করতে বনে যেতেই হয়-কাকড়া, খাড়িরমাছ বা জঙ্গলের মধু সংগ্রহ করার জন্য। কিন্তু বনদপ্তরের আধিকারিকরা জানান, তিন মাসের মধ্যে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে এটা তাঁরা মনেই করতে পারছেন না।।

সুন্দরবনের গভীর জঙ্গলে এখানকার মানুষ জন কাঁকড়া , মধু বা মাছ সংগ্রহ করতে যায় জীবন জীবিকা নির্বাহ করতে।। সুন্দরবন অঞ্চলের লাহীড়ীপুর এর বাসিন্দা মৎস্যজীবী রথীন সরকার বনের গভীরে যায় কাঁকড়া ধরতে আর সেখানেই তাঁর উপর ঝাপিয়ে পড়ে বাঘ কিন্তু তার দেহ মেলেনি।। কিছুদিন আগে ধীরেন সরকার নামে এক মৎস্যজীবীকে একই ভাবে বাঘ ধরে নিয়ে গিয়ে তাঁকে হত্যা করে। এই অঞ্চলের অন্তত পক্ষে সাতটি পরিবারের মানুষ বাঘের আক্রমণে প্রান হারিয়েছে এবং অসীম দূর্দাশাতে পড়েছে তাদের অসহায় পরিবার গুলো।। বিপদ এই সকল বাসিন্দাদের পদে পদে।

১০০ দিনের কাজ নেই, এমনকি বকেয়া পাওনার টাকাও মেটায় নি প্রশাসন ।। লকডাউন এর সময়কালে গোসাবা, কুলতলির,পাথর প্রতিমা প্রভৃতি এলাকার মানুষ নিত্যদিনের অভাব মারাত্মক হয়ে উঠে।। প্রবল ঘূর্ণিঝড় আমফান এই দূর্দশাকে আরও মারাত্মক করে তোলে।।।

এই অঞ্চলের যে এই ১১ টি পরিবারের মানুষ বাঘের পেটে গেল তা নিয়ে রাজ্য সরকারের কোন হেলদোল নেই । কোন প্রশাসনিক সাহায্য তারা পায়নি, বরং তাদের এই অবস্থায় পাশে দাঁড়িয়েছেন সিপিআইএম নেতা কর্মীরা।। সিপিআই(এম) নেতা কান্তি গাঙ্গুলী মৃত মানুষের পরিবার গুলোর পাশে দাঁড়ান এবং তাদেরকে এইসময় এর প্রয়োজনীয় সামগ্রী তাদের হাতে তুলে দেন।। পার্টির পক্ষ থেকে চার মৎস্যজীবী পরিবারের হাতে ৫০ কেজি চাল,১০ কেজি ডাল, ৫ কেজি সরষের তেল তো দেওয়া হয়েছে তার সাথে প্রতিটি পরিবারের সদস্যদের একমাসের রেশন দেওয়া হয়।। নিহত রথীন সরকার এর বাড়িতে তার স্ত্রী সহ দুই পুত্র কন্যা আছে।।ছেলে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র আর মেয়ে মাধ্যমিক পরীক্ষা দেবে।। চম্পাহাটির বাসিন্দা প্রসেনজিৎ মিস্ত্রী তাদের পড়াশোনা চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য মাসে মাসে ১০০০/- করে সাহায্য করবেন বলে কথা দিয়েছেন।।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।