জেলা

মহম্মদবাজারে আদিবাসী মহিলাকে গণধর্ষণের অভিযোগ


রণদীপ মিত্র: চিন্তন নিউজ:২৩শে আগস্ট:- মহম্মদ বাজার থানার বোরাবাদ গ্রামের‌ এক মহিলাকে জঙ্গলে পথ আটকে ধর্ষন করেছে পাঁচজন, বলে অভিযোগ। ঘটনাটি ঘটে গত শনিবার। এক আদিবাসী বিধবা মহিলা এই অভিযোগ করেন, এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মহম্মদবাজারের গ্রামে। এলাকারই পাঁচজনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছেন মহিলা।

মহিলার অভিযোগের ভীত্তিতে দু’জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিস। তিনজন পলাতক। জানা গেছে, গত মঙ্গলবার নির্যাতিত মহিলা তার এক পরিচিত যুবকের সঙ্গে মোটর বাইকে চেপে গ্রামে ফিরছিলেন। গ্রাম ঢোকার আগেই এক জঙ্গলে কয়েকজন যুবক তাদের পথ আটকায়। নির্যাতিতা যে যুবকটির সঙ্গে বাড়ি ফিরছিলেন তাকে আটকে রাখেন। এরপর পাঁচজন মিলে ওই বিধবা মহিলার উপর পাশবিক অত্যাচার চালায় বলে থানায় করা অভিযোগে জানিয়েছেন মহিলা। গত রবিবার সকালে মহিলার শারিরীক পরীক্ষার জন্য সিউড়ি সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভিন্ন মতও উঠে এসেছে ঐ গ্রাম থেকেই। গ্রামবাসীদের একাংশের কথা অনুযায়ী, ‘তিন সন্তানের মা বিধবা ওই মহিলার এক অ-আদিবাসী পুরুষের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। তাই গ্রামের সালিশি সভায় তাদেরকে জরিমানা সহ না মেলামেশা করার নিদান দেওয়া হয়। কয়েকজনের মতে এই নিদান থেকে বাঁচার উপায় হিসেবে ধর্ষণের ঘটনা সাজানো হয়েছে। সালিশি সভার পাঁচদিন বাদে গত শনিবার বিজয় হাঁসদা, ঠাকুর মার্ডি, সুশীল মার্ডি,জালপা হাঁসদা, তামর মার্ডির বিরুদ্ধে গণধর্ষনের অভিযোগ এনেছেন মহিলা। এদের মধ্যে দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিস। তবে ঘটনা ঘিরে তৈরী হয়েছে ধোঁয়াশা। প্রশ্ন উঠছে আদৌ কি মহিলা হয়েছেন পাশবিক নির্যাতনের শিকার নাকি তার প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতেই এই অভিযোগ, তা খতিয়ে দেখতে তদন্ত শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিস।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।