জেলা

অতিমারীতে সর্বস্তরের শিল্পী ও সাংস্কৃতিক কর্মীদের জীবন-জীবিকা সংকটে,


দিব্যেন্দু ধর: চিন্তন নিউজ:২১শে সেপ্টেম্বর:- অতিমারীর আক্রমণে সাধারণ মানুষ সহ সর্বস্তরের শিল্পী ও সাংস্কৃতিক কর্মীদের জীবন প্রশ্নের মুখে। উদ্বেগে প্রশ্ন জাগে শিল্পীরা যদি আর্থিক সহযোগিতা,স্বাস্থ্য বীমার ছায়াতল না পান, তবে শিল্পীরা প্রাণের রসদ পাবেন কোথায় ? প্রশ্ন অনেক।

দেশের সম্পদ বৃদ্ধি পাবে তো! নাকি আবার নিঃশব্দে বিক্রি হয়ে যাবে? এই প্রেক্ষাপটে ভারতীয় গণনাট্য সঙ্ঘ (পঃবঃ) এবং গণতান্ত্রিক লেখক শিল্পী সঙ্ঘের নেতৃত্বে সাংস্কৃতিক কর্মীদের মিলিত আহ্বান ‘আর এক আরম্ভের জন্য ‘ নতুন বার্তা নিয়ে এল। আনুষ্ঠানিক সূচনা করলেন অধ্যাপক সমীর বরণ দত্ত। বর্তমান পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে সাংস্কৃতিক কর্মীদের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করেন ভারতীয় গণনাট্য সঙ্ঘের মুর্শিদাবাদ জেলা শাখা সম্পাদক শ্যামল সেনগুপ্ত। ধর্মকে রাজনীতির হাতিয়ার করার বিরুদ্ধে মানুষকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বক্তব্য রাখেন পশ্চিমবঙ্গ গণতান্ত্রিক লেখক শিল্পী সঙ্ঘের জেলা সম্পাদক গিরিধারী সাহা। আবৃত্তি পরিবেশন করেন কাঞ্চন ভাদুড়ী, সঙ্গীত পরিবেশন করেন অপূর্ব বন্দ্যোপাধ্যায় , বিদ্যেন্দু বিশ্বাস প্রমুখ।

আজকের অনুষ্ঠানে তিনটি নাটক মঞ্চস্থ হল। নাটকগুলি হ’ল– বিমল দাসের নাটক ‘গোমুত্র ‘ ,শুভাশিস চক্রবর্তীর নাটক ‘ছন্নছাড়া ‘ও ‘চালচুরি’ মানুষের মনে দাগ কেটে গেল। ভারতীয় গণনাট্য সঙ্ঘের বহরমপুর শাখা সম্পাদক কাজল ভট্টাচার্য সাংস্কৃতিক কর্মীদের মিলিত আন্দোলনকে জোরদার করার আহ্বান জানান।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।