রাজ্য

হিন্দুস্থান কেবলস্ – বন্ধ আবাসনে ভূতের আনাগোনা


মীরা দাস, চিন্তন নিউজ, ৬ জুন: এক কালে নাম করা অপটিক  ফাইবার কেবল তৈরীর  কারখানা  ছিল। এই কারখানায় হাজার হাজার  শ্রমিক  কর্মচারির  অন্ন সংস্থান হয়েছিল। কারখানাকে ঘিরে বিরাট বসতি গড়ে উঠেছিল। নামকরা  স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল, খেলার মাঠ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের হল, বিশাল  মার্কেট, সব কিছুই গড়ে উঠেছিল এই কারখানাকে ঘিরে। কিন্তু আজ সব বন্ধ। চিরদিনের মত বন্ধ হয়ে গেছে এই বৃহৎ  ঐতিহ্যশালী  কারখানা। ২০১৪  সালে  সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় পুনরজ্জীবনের কথা দিয়েছিলেন। শ্রমিকরা  আশায় বুক বেঁধে ছিলেন, কিন্তু কিছুই  হয়নি। বরং  যে টুকু  ধুঁকছিল সেই টুকু বন্ধ করে দিয়ে, শব দাহ করে পুনরায় তিনি সাংসদ হয়ে ঠান্ডা ঘরের মসনদে বসে গেলেন। শ্রমিকরা যেটুকু আশার  আলো দেখেছিলেন সব নিভে  গেল ।
এদিকে  কিছু  মুনাফাকারী অর্থলোভী মানুষ-রুপী হাঙর জড়ো হয়েছে।  কি করে এই শ্মশান  ভূমি থেকে টাকা তোলা যায়। কঙ্কাল সার পরিত্যক্ত ভাঙাচোরা, পোড়ো  শ্রমিক কোয়ার্টার গুলোতে  সিনেমার  শুটিং( ভুত ) করে নিয়ে  গেলেন। সবই মুনাফাকারী দের ছোবল, কি করে নিজেদের অর্থ উপার্জন হবে তারই  প্রচেষ্টা । শ্রমিকরা যে তিমিরে ছিলেন সেই তিমিরেই পড়ে রইলেন। কিছুদিন আগে সিনেমার কলাকুশলীরা এসে শুটিং করে গেলেন “ভুত” সিনেমা র জন্য। সত্যি  এই প্রেতপুরী থেকে কি করে অর্থ উপার্জন করা যায় তাই নিয়ে এক শ্রেনীর মানুষের চিন্তা।পাশাপাশি  অভুক্ত রুটি রুজি হীন শ্রমিকদের কিভাবে দিন গুজরান হয় সেই কথা কেউ জানতে চাইলেন না।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।