রাজ্য শিক্ষা ও স্বাস্থ্য

ডেঙ্গুর আশঙ্কায় চরম ভোগান্তি হাবড়ায়


সুপর্ণা রায়, চিন্তন নিউজ, ২ আগস্ট: এখন বাংলার ঘরে ঘরে জ্বর। অনেক জায়গায় সাধারন জ্বর হলেও হাবড়ায় এই জ্বর ডেঙ্গুর আশংকায় ভুগছে। হাবড়ার পৌর এলাকায় এই জ্বর নিয়ে এক ভীষন উদ্বেগজনক পরিস্থিতি তৈরী হয়েছে এবং সেটা জেলাশাসক এর কথাতেই স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। গত কয়েকদিনে হাবড়ায় সাধারন ২ জন আর এক গৃহবধুর মৃত্যু হয়েছে এই ডেঙ্গু জ্বরে। এরপর প্রশাসন নড়েচড়ে বসলেও তারা এটা মানেনি যে মৃতদের মৃত্যু ডেঙ্গুতে হয়েছে। আবার হাসপাতালও মানেনি তাদের মৃত্যু ডেঙ্গুতে।

কিন্তু পরিসংখ্যান বলছে হাবড়া হাসপাতালে আপাতত ৯০ জন মানুষ জ্বর নিয়ে ভর্তি আছে। তার মধ্যে ৩০ জন এস.ওয়ান পজিটিভ। অনেকেই সরকারি হাসপাতালের ভরসা না রেখে অন্যত্র রোগী নিয়ে চলে যাচ্ছেন। কিন্তু তবু রোগীর সংখ্যা কমছে না। আর এখানেই বিপদ।

উঃ চব্বিশ পরগনার জেলাশাসক চৈতালী চক্রবর্তী হাসপাতালে আসেন পরিস্থিতি পরিদর্শনে। সেখানেই তিনি জরুরী সভা করেন। এই আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন পৌর আধিকারিকরা। রোগীর চাপ এত বেশী যে হিমসিম খাছেন স্বাস্থ্য কর্মীরা। হাবড়া হাসপাতালে ইতিমধ্যেই ৬ জন ডাক্তার আর বেশ কয়েকজন নার্স নিয়োগ করা হয়েছে। জ্বরের প্রকোপ যতদিন না কমবে ততদিন এরা থাকবেন বলেই জানিয়েছেন জেলাশাসক।

তবে হাবড়া পৌরসভার ভুমিকা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে মানুষের মনে। অক্টোবরে এই পৌরসভার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। প্রশাসক বসলেও নজরদারী হয়না বললেই চলে। গ্রামবাসীদের বক্তব্য, গত বছর ডেঙ্গু জ্বরে কিছুটা লাগাম পড়ানো গেলেও এবার পরিস্থিতি একেবারে লাগামছাড়া। প্রত্যেকদিন বাড়ছে রোগীর সংখ্যা। আরও অদ্ভুত কথা হল রোগী মারা যাচ্ছে ডেঙ্গুতে, আর ডাক্তাররা জোর দিয়ে বলছে এদের মৃত্যুর কারণ সেপটেসেমিয়া।

অশোক নগরের এক গৃহবধু রীতা বালা মারা যান ডেঙ্গুর জ্বরে। এতে এলাকায় আতঙ্ক তৈরী হয়েছে। কিন্তু কিছুতেই পৌরপ্রশাসনের ঘুম ভাঙছে না। অনেকেই বলছেন এখানে যে মশা মারার তেল ছড়ানোর কথা তা খুব একটা হয় না, আবার জঙ্গল তেমন ভাবে পরিস্কার হয় না। তার থেকেও বড় কথা পৌরসভার নোংরা ফেলার যে গাড়ী আছে সেগুলি ব্যবহারই হয় না। সেগুলিতে কাজ না করে করে জং ধরে গেছে আর তা নষ্ট হচ্ছে। যদি এখনই জরুরী ভিত্তিতে পৌরপ্রশাসন যথোপযুক্ত ব্যাবস্থা গ্রহন না করে তবে সামনে গুরুতর বিপদের দিন আসতে চলেছে, আর তা আটকানো কোনভাবেই সম্ভব হবে না।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।