অর্থনৈতিক দেশ রাজনৈতিক

কৃষি আইন নিয়ে সুর নরম সরকারের


সুপর্ণা রায়, চিন্তন নিউজ, ৩১ ডিসেম্বর: কৃষিবিল সংসদে পাশ হওয়ার পর থেকেই চলছে এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ কর্মসূচি। নিজেদের দাবি আদায়ে কৃষকরা দিন রাত এক করে ধর্নায় বসেছে। তাঁদের দাবি, কৃষক মারা এই কৃষিবিল বাতিল করতে হবে। এই আন্দোলন করতে গিয়ে প্রচন্ড ঠান্ডার অসুস্থ হয়ে বেশ কিছু কৃষকের মৃত্যু ঘটেছে। সমাজের সকল স্তরের মানুষ কৃষকদের এই আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়েছেন। কৃষকদের সমর্থনে সফল ভাবে ভারত বনধ সংগঠিত হয়েছে।

এইভাবে চলতে থাকা কৃষক আন্দোলনের মুখে পড়ে কেন্দ্রীয় সরকার কৃষকদের দুটি দাবী মেনে নিতে বাধ্য হয়েছে। আন্দোলনের জেরে সুর নরম করতে বাধ্য হয়েছে মোদী সরকার। যদিও কৃষকদের মূল দাবী নয়া কৃষিবিল প্রত্যাহার এবং ফসলের দামের আইনি গ্যারান্টি নিয়ে কোন সমাধান হয়নি।

উপায়ান্তর না দেখে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা কৃষক নেতাদের কাছেই এর সমাধান সুত্র জানতে চেয়েছেন। কৃষিবিল প্রত্যাহার করে নেওয়া ছাড়া অন্য কোন উপায় যদি থাকে তাহলে তা জানানোর জন্য অনুরোধ করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা। আবার আগামী চার তারিখে সমাধান সুত্র যাতে বার করা যায় তাই নিয়ে বৈঠক হবে।

কেন্দ্রীয় সরকার প্রথম যে দাবীটি মেনে নিয়েছে তা হলো দিল্লির দূষণ কমাতে খড় পোড়ানো বন্ধ করতে হবে। খড় পোড়ালে পাঁচ বছর জেল এবং এক কোটি টাকা জরিমানা আদায় করা হবে। বিলের এই পর্যায় থেকে কৃষকদের ছাড় দেওয়া হয়েছে। আর দ্বিতীয়টি হলো কৃষকদের দাবী ছিল আগে বিদ্যুৎ ব্যবহারের ক্ষেত্রে যেরকম ভর্তুকি মিলতো তা আবার চালু করতে হবে।

বৈঠকের পর কৃষক নেতা হান্নান মোল্লা জানান বুধবার আলোচনার প্রথম থেকেই কেন্দ্রীয় সরকারের সুর ছিল নরম। তাঁরা কিছু দাবি মেনে নিতে রাজি আছেন কিন্তু সরকারের অসুবিধার কথাটা একটুখানি চিন্তা করতে বলেছেন। কারণ সব যদি মেনে নেওয়া হয় তবে কেন্দ্রীয় সরকার তথা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মুখ পুড়বে। কৃষক নেতা হান্নান মোল্লা আশা প্রকাশ করেন আগামী চার তারিখের বৈঠকে মোটামুটি একটা ভালো সিদ্ধান্ত মিলবে।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।