দেশ শিক্ষা ও স্বাস্থ্য

প্রকৃত তথ্যের অভাবে দেশে করোনা সংক্রমণ ভয়াবহ


সুপর্ণা রায়:চিন্তন নিউজ:১৮ই জুন:- করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে ভারতবর্ষে মৃত্যু হার বেড়েই চলেছে।। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দাবি পুরো বিশ্বে করোনা ভাইরাস যেমন মারাত্মক থাবা বসিয়েছে ভারতে তেমনটা হয়নি। কিন্তু তাঁর এই কথার পর মাত্র চব্বিশ ঘন্টার মধ্যে ভারতে করোনা সংক্রমিত হয়ে মৃত্যু হলো দু’হাজার জন মানুষের।। খবরে প্রকাশ কেন্দ্র জানিয়ে বাধ্য হয়েছে মাত্র চব্বিশ ঘণ্টার ব্যবধানে করোনা সংক্রমিত হয়ে মৃত্যু হার বেড়েছে প্রায় পাঁচ গুণ।

এখন দেশে প্রতি মিনিটে আট জন মানুষ সংক্রামিত হচ্ছেন এবং দেশে মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় ১২হাজার জন।। এত মানুষের মৃত্যু হয়েছে এবং এর কারণ জানাতে গিয়ে কেন্দ্র থেকে বলা হচ্ছে যে রাজ্যগুলো মৃত্যুর সংখ্যা ঠিকঠাক করে জানিয়ে দিয়েছেন তাই মৃত্যু হারের হেরফের ঘটেছে।।সংক্রমনের নিরিখে ভারত এখন বিশ্বে চতুর্থ আর মৃত্যুর নিরিখে রয়েছে আট নম্বরে।। মহারাষ্ট্র সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মানুষ সংক্রামিত হয়েছেন এবং সেখানে এক লক্ষের বেশি মানুষ সংক্রমণের শিকার।। দিল্লী তেও ৪৩৭ জন মারা গেছেন।।

কেন্দ্রীয় সরকারের দাবি মঙ্গলবার থেকে বুধবার এর মধ্যে ৮১ জনের মৃত্যু হয়েছে।। তাই যদি হয় রাজ্যগুলোতে আগে ঘটে যাওয়া মৃত্যু এখন নথিভুক্ত করা হচ্ছে কেন??? স্বাভাবিক ভাবেই এই প্রশ্নটা উঠেই যাচ্ছে।। সরকার যে চুড়ান্ত ভাবে মৃত্যুর সংখ্যা ধামাচাপা দিচ্ছে বিরোধী দলের নেতারা এই অভিযোগ প্রথম থেকেই করে আসছেন।। বিশেষজ্ঞ মহলের স্পষ্ট বক্তব্য কেন্দ্র কিছুতেই প্রকৃত তথ্য সামনে আনতে দিচ্ছে না।। শোচনীয় গরমিল রয়েছে মৃত্যুর সংখ্যা যে বিভিন্ন রাজ্যসহ পশ্চিম বাংলাতেও।। সঠিক তথ্য সব রাজ্য সরকার গুলো এবং কেন্দ্রীয় সরকার জানালে আজ হয়তো করোনা ভাইরাস সংক্রমণের পরিস্থিতি এমন ভয়াবহ হতো না।। তথ্য গোপন করার ও কোন সঙ্গত কারন নেই, তবে কেন তথ্য গোপন করে মানুষ গুলোকে এই মারাত্মক বিপদের মুখে ঠেলে দেওয়া হল সেই প্রশ্নের জবাব সব রাজ্য সরকার এবং কেন্দ্রীয় সরকারকে দিতেই হবে আজ না হোক কাল।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।