জেলা

আজিমগঞ্জ পোস্ট অফিস বর্তমানে তৃণমূলের পার্টি অফিসে পরিনত হয়েছে :-


রত্না দাস: বহরমপুর, চিন্তন নিউজ:২৫ মার্চ:
মুর্শিদাবাদ জেলার আজিমগঞ্জ পোস্ট অফিস একটি পুরোনো ঐতিহ্যবাহি পোষ্ট অফিস। এই পোস্ট অফিসের অধীনে বেশ কয়েক হাজার মানুষ নির্ভরশীল জীবনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য আদান প্রদানের ক্ষেত্রে। কিন্তু বিগত কিছু দিন ধরে ব’কলমে তৃণমূলের স্থানীয় নেতারাই চালাচ্ছে পোস্ট অফিসটি। আধার সংক্রান্ত বিভিন্ন কাজে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নেওয়া হচ্ছে এবং এই কাজ প্রায় প্রকাশ্যই করা হচ্ছে তৃণমূলের নেতা কর্মীদেরকে সাথে নিয়ে। এলাকার বাসিন্দারা আরো বলেন তাদের নামে আসা ভোটার কার্ড, আধার কার্ড, চাকরি সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ চিঠি পোস্ট অফিস থেকে হয় তৃণমূল নেতার বাড়ি নয়তো তৃণমূল অফিসে চলে যাচ্ছে। সেখান থেকে আবার টাকার বিনিময়ে সেগুলো আনতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।সামনেই ভোট তাই তাদের সক্রিয়তা একটু বেশি। গত ফ্রেব্রুয়ারির শেষ দিকে এলাকার মানুষ পোস্টম্যান অসগর ও সুরজিত দাসকে একেবারে হাতে নাতে ধরে ফেলে ভোটার কার্ড তৃণমূল নেতার বাড়িতে দিতে। পোস্ট ম্যান সুরজিত দাসকে ফোন করা হলে তিনি সে কথা স্বীকার করে নেন।

৭/৩/২৪ তারিখে পোস্ট মাস্টার সৌমিত্র গুইনকে জনৈক এলাবাসি শুভেন্দু দাস ফোন করলে তিনি তাকে বলেন তিনি কিছু জানেননা এবিষয়ে। ১৯/০৩/২০২৪ তারিখে চিন্তনের তরফে পোষ্টমাস্টারকে ফোন করা হলে তিনি স্বীকার করে নেন যে গুরুত্বপূর্ণ নথি বিলির ক্ষেত্রে কিছু অনিয়ম হয়েছিলো তবে সংশোধন করে নেওয়া হয়েছে। আর আধার কার্ড সংক্রান্ত কাজকর্মের ক্ষেত্রে যে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে তা সত্যি নয়। তবে এলাকাবাসীদের অভিযোগ যদি ঘটনা সত্যি না হয় তবে দীর্ঘদিনের দাবি মতো কেন প্রকাশ্যে নোটিশ নেই, যে আধার সংক্রান্ত কাজে সরকারের নির্ধারিত টাকার অতিরিক্ত টাকা লাগবেনা। আজিমগঞ্জ শহরের মানুষ দীর্ঘদিন ধরেই এই অন্যায়ের শিকার, কখনো আর্থিক ভাবে, কখনো নথি চুরি জনিত কারনে।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।